সাম্প্রতিক সংবাদ

আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা, লেখক ও সাহিত্যিক মোঃ আতোয়ার খানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী

প্রকাশিত: ৩:৫৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২১

আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা, লেখক ও সাহিত্যিক মোঃ আতোয়ার খানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী

সময় দ্রুত চলে যায় । সময়ের সাথে সাথে আমাদের কাছে থেকে চলে যান অনেক বরেন্দ্র ব্যক্তিরা । এমনি একজন হলেন মরহুম মোঃ আতোয়ার খান । মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বিশিষ্ট লেখক ও সাহিত্যিক ছিলেন আতোয়ার খান । গত বছরের ৫ জুলাই তিনি ইন্তেকাল করেন। আজ তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী ।

মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় আতোয়ার খান বৃহত্তর আম্বরখানা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ছিলেন। তিনি ছিলেন আধ্যাতিক চিন্তা-চেতনার ধারক এবং বাহক সাদা মনের অমায়িক, সৎ , নিরিহ নির্লোভ ও পরোপকারি মানুষ ।

মোঃ আতোয়ার খান ছাএ জীবন হতে আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত ছিলেন । সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের আজীবন পৃষ্ঠপোষক সদস্য ছিলেন এবং আম্বরখানা গালস্ স্কুল এন্ড কলেজের গর্ভনিং বডির সদস্যও ছিলেন। এছাড়া আম্বরখানা দর্শন দৈউরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতিও ছিলেন । তিনি পেশায় একজন ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন । পরবর্তীতে ব্যবসায় যোগদান করেন ।

এছাড়াও তিনি দৈনিক সিলেটের ডাক পত্রিকার লেখক ও সিলেটের ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলোয়াড় ছিলেন । লাঠি খেলায় তাঁর পারফর্মেন্স ছিল লক্ষণীয় । তিনি খুব ভালো লাঠি ও তলোয়ার খেলা জানতেন । তার বন্দুকের নিশানাও খুব ভালো ছিল । তিনি বাংলা , ইংরেজি , উর্দু ও হিন্দিসহ বেশ কয়েকটি ভাষায় কথা বলতে পারতেন । ইসলামীক বিষয়েও তার অনেক জ্ঞান ছিল । সিলেটের সবকটি পত্রিকায় তাঁর মূল্যবান লেখা প্রতিদিনই ছাপা হত । তিনি বেশ কয়েকটি বইও লিখেছিলেন ।

রাজনৈতিক ও সামাজিক সকল অঙ্গনে তার ভূমিকা রয়েছে । বিশেষ করে শিক্ষাক্ষেত্রে তার বিশেষ অবদান রয়েছে ।

আতোয়ার খান খুবই সাধারন জীবন যাপন করতেন । তিনি একজন সরকারি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন । চাকরি জীবনের পরে দেশের বাইরে ছিলেন দীর্ঘ অনেক বছর । দেশ ও দেশের বাইরে অনেক জায়গায় তার কতৃত্বের সাক্ষর রয়েছে । বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন গর্বিত সৈনিক ছিলেন তিনি । এছাড়াও দেশের অনেক দুঃসময়ে পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি । বন্যা ও বিভিন্ন প্রকৃতির দুর্যোগে দেশ যখনই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তখনই তিনি দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন । ১৯৮০ সালে তিনি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন ‌। তার ৫ মেয়ে ও ১ ছেলে সন্তান রয়েছে । তার পাঁচ মেয়ের সবাই মাস্টার্স পাশ । তার বড় দুই মেয়ে এল.এল.বি পাশ । তার একমাএ ছেলে সিলেট এম.সি কলেজে অধ্যয়নরত রয়েছেন ।

মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল প্রায় ৭৫ বছর।তাকে পারিবারিক গোরস্হানে দাফন করা হয়েছে । পরিশেষে বলব , মোঃ আতোয়ার খান ছিলেন সিলেট শহরের একজন বরেণ্য ব্যক্তিত্ব। তার কাজের জন্য জাতি তাকে হাজার বছর মনে রাখবে ।কথায় আছে , ‘ কীর্তিমানের মৃত্যু নেই ‘ । আতোয়ার খানও তার কীর্তির জন্য অমর হয়ে থাকবেন ।

তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমরা গভীর শ্রদ্ধায় তাকে মনে করছি । সেই সাথে, আমরা তাহার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি । মরহুম আতোয়ার খানের ভাতিজা সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি উনার চাচার মাগফেরাত কামনা করে সবার কাছে দোয়া চান। মহান আল্লাহ পাক যেন তাকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করেন । আমিন ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ